সুদহারের উল্টো যাত্রা

  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:৪১ পিএম, ২০ জানুয়ারি ২০১৯

ঋণের সুদহার কমানোর জন্য গত বছর ব্যাংকগুলোকে একের পর এক সুবিধা দেওয়া হয়। ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের দাবির মুখে সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখার সুযোগ দেয় সরকার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নগদ জমা বা সিআরআর সংরক্ষণের হার কমানো হয়। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে স্বল্প মেয়াদে ধারের ব্যবস্থা ‘রেপো’র সুদহারও কমানো হয়। এসব সুবিধা দেওয়ার প্রধান লক্ষ্য ছিল তুলনামূলক কম সুদে ঋণের মাধ্যমে দেশে বিনিয়োগ উৎসাহিত করা। আর নানা সুবিধা পাওয়ার পর ব্যাংকের উদ্যোক্তারা গত বছরের জুন মাসে সিঙ্গেল ডিজিট বা সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণের ঘোষণা দেন। এর পর থেকে ৯ শতাংশ না হলেও সুদহার কমে আসছিল। তবে সম্প্রতি ঋণের সুদহারের উল্টো যাত্রা শুরু হয়েছে। নতুন করে সুদহার বাড়ানোর প্রবণতাকে বিনিয়োগের প্রতিবন্ধকতা হিসেবে মনে করছেন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা।

সংশ্নিষ্টরা জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সরকারের চাপে সাময়িকভাবে সুদহার সামান্য কমিয়েছিল ব্যাংক। এখন আবার বাড়াতে শুরু করেছে। শিল্পের মেয়াদি ও চলতি মূলধন ঋণের সুদহার এখন ১১ থেকে ১৬ শতাংশ। অবশ্য আমানতের সুদহারও বাড়ছে। কোনো কোনো ব্যাংক ১০ শতাংশ সুদেও মেয়াদি আমানত নিচ্ছে। ব্যাংকারদের মতে, নির্বাচনের পর বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বাড়ার লক্ষণ এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনার আলোকে আগামী মার্চের মধ্যে ঋণ-আমানত অনুপাত (এডিআর) নতুন সীমায় নামিয়ে আনার বাধ্যবাধকতার ফলে সুদহার বাড়ছে।

জানতে চাইলে ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্সের (এবিবি) চেয়ারম্যান ও ঢাকা ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান আওয়ার বাংলাকে বলেন, ৯ থেকে ১০ শতাংশ সুদে আমানত নিয়ে সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ সম্ভব নয়। আস্তে আস্তে ঋণের চাহিদা বাড়ার ফলে তারল্যের ওপর এখন চাপ আরও বাড়ছে। এ ছাড়া আগামী মার্চের মধ্যে এডিআর সমন্বয়ের নির্দেশনা রয়েছে। সব মিলিয়ে সুদহার বাড়ছে।

কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ব্যাংকের তুলনায় সরকারের ঋণ নেওয়ার মাধ্যম সঞ্চয়পত্রে সুদহার অনেক বেশি। ফলে আমানতকারীদের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের প্রবণতা বেড়েছে। এতে সার্বিকভাবে ব্যাংকে আমানতের প্রবৃদ্ধি কমে গেছে। এ পরিস্থিতিতে অনেক ব্যাংককে আমানতের সুদহার বাড়াতে হচ্ছে। আর আমানতের সুদহার বাড়লে ঋণের সুদহার বাড়া স্বাভাবিক।

বিভিন্ন ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, শিল্পের মেয়াদি ঋণে অধিকাংশ ব্যাংক ১১ থেকে ১৬ শতাংশ সুদ নিচ্ছে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ঋণে সুদ নেওয়া হচ্ছে ১৭ শতাংশ পর্যন্ত। বাড়ি-গাড়ি কেনার ঋণে এখন ১১ থেকে ১৬ শতাংশ সুদ নেওয়া হচ্ছে। ব্যবসা তথা ট্রেডিংয়ে সুদ দিতে হচ্ছে ১২ থেকে ১৫ শতাংশ। আর ক্রেডিট কার্ডে অধিকাংশ ব্যাংকের সুদহার রয়েছে ২৪ থেকে ২৭ শতাংশ। ঋণের সুদহারের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা ঠেকাতে গত বছরের এক নির্দেশনায় বছরে ১ শতাংশের বেশি সুদ না বাড়ানোর নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। একবার বাড়ানোর জন্যও অন্তত তিন মাস আগে গ্রাহককে নোটিশ দিতে বলা হয়। অপর এক নির্দেশনার মাধ্যমে ক্রেডিট কার্ডে অন্য যে কোনো ঋণের সর্বোচ্চ সুদের চেয়ে ৫ শতাংশের বেশি সুদ না নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে অধিকাংশ ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা লঙ্ঘন করে গ্রাহকদের কাছ থেকে উচ্চহারে সুদ নিচ্ছে। আর ব্যাংকগুলোর নিজেদের ঠিক করা ‘সিঙ্গেল ডিজিট’ তো মানাই হচ্ছে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের দেওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, টানা কয়েক মাস ঋণের সুদহার সামান্য কমার পর আবার বাড়ছে। গত বছর জুনে ব্যাংকগুলোর গড় সুদহার ছিল ৯ দশমিক ৮৫ শতাংশ। জুলাইতে কমে ৯ দশমিক ৭১ শতাংশে নামে। এভাবে প্রতি মাসে কমতে কমতে অক্টোবরে ৯ দশমিক ৪৭ শতাংশে নামে। তবে নভেম্বরে আবার বেড়ে ৯ দশমিক ৫০ শতাংশ হয়েছে। আর জুনে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর গড় সুদহার ছিল ১০ দশমিক ৫৬ শতাংশ। জুলাইতে তা ১০ দশমিক ৩৯ শতাংশে নামে। অক্টোবরে আরও কমে ১০ দশমিক ২২ শতাংশ হয়। তবে নভেম্বরে বেড়ে ১০ দশমিক ২৫ শতাংশে ওঠে। এদিকে গত জুনে ব্যাংকগুলো গড়ে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ সুদে আমানত নেয়। ঋণের সঙ্গে আমানতের ধারাবাহিক সুদহার কমে অক্টোবরে ৫ দশমিক ২৫ শতাংশ হয়। নভেম্বরে আবার বেড়ে তা ৫ দশমিক ৩০ শতাংশ হয়েছে। ডিসেম্বরের গড় সুদহারের পরিসংখ্যান এখনও পাওয়া যায়নি। তবে বিভিন্ন ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে সুদহার বাড়ানো হয়েছে।

জানতে চাইলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন আওয়ার বাংলাকে বলেন, কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় বিনিয়োগ বাড়াতে চাইলে ঋণের সুদহার কমানোর কোনো বিকল্প নেই। সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণের কথা বললেও অধিকাংশ বেসরকারি ব্যাংক এখনও তা কার্যকর করেনি। উল্টো এখন সুদহার বাড়ছে। এ প্রবণতা বিনিয়োগকে বাধাগ্রস্ত করবে। তিনি বলেন, নতুন অর্থমন্ত্রী দায়িত্বে এসেছেন। আশা করি, সুদহার বাড়া থামাতে অর্থমন্ত্রী এবং সেই সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সব পক্ষ কাজ করবে।

ব্যাংক খাতসংশ্নিষ্টরা জানান, ঘোষণার আলোকে সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার কার্যকর করার অন্যতম শর্ত ছিল সরকারি প্রতিষ্ঠান সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ সুদে ব্যাংকে আমানত রাখবে। সরকারি ব্যাংকগুলোও উদ্বৃত্ত তহবিল বেসরকারি ব্যাংকে রাখার ক্ষেত্রে ৬ শতাংশের বেশি সুদ নেবে না। তবে কেউই তা মানছে না। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে এখন আমানত নিতে ৯ শতাংশের বেশি সুদ দিতে হচ্ছে। আবার ব্যাংকের মুনাফা বাড়ানোর জন্য ব্যাংকারদের ওপর চাপ রয়েছে। প্রবৃদ্ধি কমলে ব্যাংকারদের জবাবদিহির আওতায় আনা হচ্ছে। এ ধরনের বাস্তবতায় সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার কার্যকর সম্ভব নয়।

বেসরকারি একটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আওয়ার বাংলাকে বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে বিদেশি ঋণের সুদহার বাড়ার ফলে এমনিতেই দেশীয় ব্যবস্থায় ঋণের ওপর একটা চাপ রয়েছে। আবার সঞ্চয়পত্রে বেশি সুদের কারণে আমানত সংগ্রহেও বেশি ব্যয় হচ্ছে। উদ্যোক্তাদের ঘোষণার পর অনেক ব্যাংক সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণের কথা বললেও বাস্তবে কেউ করেছে বলে তার জানা নেই। তিনি বলেন, ২০১৮ সালে খেলাপি ঋণ বেড়ে যাওয়া, ডলারের বিপরীতে ভালো ব্যবসা করতে না পারা এবং ঋণ প্রবৃদ্ধি কমাসহ বিভিন্ন কারণে মুনাফা কমবে বলে তাদের ধারণা ছিল। তবে সামগ্রিকভাবে মুনাফা বেড়েছে।

রাষ্ট্রীয় মালিকানার অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম আওয়ার বাংলাকে বলেন, সুদহার বাড়ার বিষয়টি নির্ভর করে বাজার চাহিদার ওপর। সাম্প্রতিক সময়ে ঋণ চাহিদা বাড়ার ফলে সুদহার বাড়ছে। অবশ্য সরকারের নির্দেশনা মেনে সরকারি ব্যাংকগুলো আমানতের সুদহার ৬ শতাংশ এবং ঋণে ৯ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। এখন বাড়তির দিকে থাকলেও তা নির্ধারিত সীমার নিচে রয়েছে। তবে অনেক বেসরকারি ব্যাংক এ নির্দেশনা পরিপালন করেনি।

২০১৭ সালের মাঝামাঝি থেকে ঋণ চাহিদা ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় তা নিয়ন্ত্রণে গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ঋণ-আমানত অনুপাত (এডিআর) কমিয়ে দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তখন অনেক ব্যাংক ডাবল ডিজিট সুদে আমানত নিতে শুরু করে। এ রকম পরিস্থিতিতে সুদহার কমানোর কথা বলে বিভিন্ন সুবিধা নেন ব্যাংক উদ্যোক্তারা। গত ১ এপ্রিল ব্যাংক মালিকদের সঙ্গে এক বৈঠক থেকে সিআরআর সাড়ে ৬ শতাংশ থেকে কমিয়ে সাড়ে ৫ শতাংশ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়ে বাংলাদেশ ব্যাংক। সিআরআর কমানোর ফলে বিনা সুদে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা রাখার বাধ্যবাধকতা থেকে ছাড় পায় ব্যাংকগুলো। একই সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ধার নেওয়ার ‘রেপো’ সুদহার ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৬ শতাংশ করা হয়। এ ছাড়া সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখার সুযোগ দেওয়া হয়। এর পর প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনার আলোকে গত ২০ জুন ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিএবির বৈঠক থেকে জুলাই থেকে সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণের ঘোষণা দেওয়া হয়।

প্রিয় পাঠক, আপনিও হতে পারেন আওয়ার বাংলা অনলাইনের একজন সক্রিয় অনলাইন প্রতিনিধি। আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনা, অপরাধ, সংবাদ নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুনঃ [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :