ব্যবসায়ীদের ‘কম লাভ, বেশি বিক্রি নীতি’ অবলম্বনের পরামর্শ ভূমিমন্ত্রীর

  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:৫৭ এএম, ১৫ মার্চ ২০১৯

আবাসন ব্যবসায় গতি ফেরাতে ব্যবসায়ীদের ‘কম লাভ, বেশি বিক্রি নীতি’ অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম নগরীর রেডিসন ব্লু বে ভিউতে চার দিনব্যাপী রিহ্যাব মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ পরামর্শ দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, আবাসন ব্যবসার মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত সাশ্রয়ী আবাসন (অ্যাফোর্ডেবল হাউজিং)। অর্থাৎ কম দামে বাড়ি কিংবা ফ্ল্যাট ক্রেতার কাছে তুলে দেওয়া। এ জন্য আপনারা ‘লেস প্রফিট, মোর ভলিউম’ নীতি অনুসরণ করতে পারেন। তবেই আবাসন ব্যবসায় গতি আসবে।

সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, অনেকেই বলেন ভূমির উচ্চ মূল্যের কারণে বাংলাদেশে অ্যাফোর্ডেবল হাউজিং সম্ভব হচ্ছে না। সিঙ্গাপুর, টোকিও, হংকংয়েও একই অবস্থা। জমির দাম নাগালের বাইরে। তবে তারা বসে নেই। মাইক্রো হাউজিং, মাইক্রো অ্যাপার্টমেন্ট চালু করে আবাসন ব্যবসা জমজমাট রেখেছে।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে জনসংখ্যা যেভাবে বাড়ছে, সে পথে যাওয়া ছাড়া উপায় দেখছি না। শহর এলাকায় এক হাজার বর্গফুট কিংবা এর চেয়ে ছোট জায়গায় দুই বেডের অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি করা যায়। এ রকম কনসেপ্ট নিয়ে আপনারা এগোতে পারেন।

ভূমিমন্ত্রী আরও বলেন, আবাসন ব্যবসার মেঘ সরছে। এ ব্যবসার একটা ভালো ভবিষ্যৎ আমি দেখতে পাচ্ছি। আপনাদের ব্যবসা আগামী ১০ বছরে আরও সম্প্রসারিত হবে। এটা মানুষের মূল চাহিদার একটি। সুতরাং শৃঙ্খলা যদি রাখতে না পারেন, আপনাদের জন্যও খারাপ হবে, ক্রেতাদের জন্যও। গুটি কয়েক মন্দ লোকের কারণে আবাসন ব্যবসার সুনাম যাতে ক্ষুণ্ন না হয় সে বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

ভূমিমন্ত্রী বলেন, ‘আবাসন ব্যবসায় সবাই দাবি করে, তারা রিহ্যাবের মেম্বার। কিন্তু মেম্বারদের একটি রেটিং থাকা দরকার। সব কাজের মনিটরিং দরকার। কোনো মেম্বারের বিরুদ্ধে অভিযোগ এলে দ্রুত তা তদন্ত করতে হবে। দোষী প্রমাণিত হলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি করতে হবে।

অনুষ্ঠানে রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল আলামিন বলেন, ভূমি মূল্যের কারণে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তের আবাসন নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। এ জন্য সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। সরকার যদি খাস জমি রিহ্যাব সদস্যদের বরাদ্দ দেয়, তাহলে ১০ থেকে ৩০ লাখ টাকার মধ্যে ফ্ল্যাট বিক্রি করা সম্ভব হবে।

রিহ্যাব চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির প্রেসিডেন্ট আবদুল কৈয়ুম চৌধুরী বলেন, ‘আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন অনুমোদনের জন্য একাধিক দপ্তরে ঘুরতে হয়। এক জায়গা থেকে সব অনুমোদন যাতে পাওয়া যায়, সেজন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করার দাবি জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট কামাল মাহমুদ। উপস্থিত ছিলেন রিহ্যাব পরিচালক শাকিল কামাল চৌধুরী, প্রকৌশলী দিদারুল হক চৌধুরী ও মাহবুব সোবহান জালাল তানভীর।

‘স্বপ্নীল আবাসন সবুজ দেশ, লাল-সবুজের বাংলাদেশ’- স্লোগানে আয়োজিত আবাসন মেলায় এবার ৫৬টি প্রতিষ্ঠানের ৭৬টি স্টল থাকবে। বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া মেলা চলবে আগামী রোববার পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে এ মেলা। মেলায় প্রবেশের জন্য দুই ধরনের টিকিট রয়েছে। একবার প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে ৫০ টাকা। আর মাল্টিপল টিকিটে চারবার প্রবেশ করা যাবে। এ টিকিটের মূল্য রাখা হয়েছে ১০০ টাকা।

প্রিয় পাঠক, আপনিও হতে পারেন আওয়ার বাংলা অনলাইনের একজন সক্রিয় অনলাইন প্রতিনিধি। আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনা, অপরাধ, সংবাদ নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুনঃ [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :