নতুন মেয়রের স্বল্পমেয়াদি ‘টু-ডু’ তালিকা; ডিএনসিসি

  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:১৪ পিএম, ০২ মার্চ ২০১৯

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ঢাকা শহরের (উত্তরের) জন্য করণীয় লক্ষ্যগুলোকে স্বল্প, মধ্যবর্তী এবং দীর্ঘমেয়াদি—এই তিনটি পর্যায়ে ভাগ করেছেন। এর মধ্যে মেয়র হিসেবে আগামী এক বছরে তাঁর স্বল্পমেয়াদি করণীয় কাজের ‘টু-ডু’ তালিকা ঘোষণা করেছেন তিনি।

আজ শনিবার উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরে বাংলাদেশ ক্লাবের সভাকক্ষে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে তিনি এই তালিকা প্রকাশ করেন। এক বছরের এ তালিকায় ঢাকা উত্তরের ৯টি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা প্রাধান্য পেয়েছে।

নতুন এই মেয়রের এক বছরের করণীয় কাজগুলো হলো—ঢাকা উত্তরকে আলোকিত করা, পরিবেশদূষণ রোধ, নগর অ্যাপকে সক্রিয় করা, ডিজিটাল পদ্ধতিতে কর ও লেনদেন পরিচালনা, সবুজ ঢাকা (বৃক্ষরোপণ, নগর বনায়ন, নগর কৃষির বিস্তার, খেলার মাঠ, পার্কের মাধ্যমে) গড়ে তোলা, নাগরিকদের জন্য ফুটপাত, সড়কে নিরাপত্তা ও পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা, নতুন এলাকার উন্নয়ন এবং প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের শুরু করা কাজগুলো সম্পন্ন করার সর্বাত্মক চেষ্টা করা।

আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘সংসদ সদস্য, সকল নেতা, সর্বস্তরের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করব। আমাদের সবার জন্য আমাদের প্রাণের ঢাকার জন্য কাজ করব আমরা সবাই মিলে।’ তিনি বলেন, কর ও লেনদেন ডিজিটালাইজড ও অটোমেটেড করা, বৃক্ষরোপণ, নগর বনায়ন, নগর কৃষির বিস্তার ও বিকাশ, প্রতি মহল্লায় উন্মুক্ত পার্ক ও খেলার মাঠ গড়ে তোলার মাধ্যমে সবুজ ঢাকা গড়ে তোলা হবে।

নগরের দখল হয়ে যাওয়া ফুটপাত নাগরিকদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার কথা জানিয়ে নবনির্বাচিত মেয়র বলেন, সড়ক নিরাপত্তা ও পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা হবে। নতুন যুক্ত এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা করা হবে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের শুরু করা নগর উন্নয়নের কাজ সম্পন্ন করা হবে।

এ সময় প্লাস্টিকের বোতল, আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলার আহ্বান জানান মেয়র। তিনি বলেন, কালেকটিভ পদ্ধতিতে মশার বিরুদ্ধে ক্রাশ প্রোগ্রাম নেওয়া হবে। এ জন্য সেনানিবাস, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, বিমানবন্দর, ডিএমপি ও সিটি করপোরেশনের মধ্যে সমন্বয় করে এটা বাস্তবায়ন করে মশা দূর করা হবে।

নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ব্যাপারে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে আমাকে বিজয়ী করার জন্য ঢাকা উত্তরের সব ভোটারকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই। আমাদের একটাই চাওয়া, একটি সুস্থ ও আধুনিক ঢাকা। আমাদের এই যাত্রা হতে হবে সম্মিলিত। আমাদের এগিয়ে যেতে হবে হাতে হাত রেখে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা শুধু আমার শহর নয়, এই শহর আপনাদেরও। আমাদের সামান্য সচেতনতা এবং একটু সহযোগিতায় নগরীর প্রাপ্য।’

নতুন ওয়ার্ডের বিষয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের সংযুক্তিতে উত্তর ঢাকা আজ আকারে দ্বিগুণের বেশি হয়েছে। উন্নয়নের সম্ভাবনার হাতছানিতে আমাদের কাজ করার অনুপ্রেরণা পেয়েছে। নতুন মাত্রা কিন্তু ছোট ছোট লক্ষ্যগুলো অর্জন করতে না পারলে বড় বিজয়গুলো আমাদের হাতের নাগালের বাইরে রয়ে যাবে। তাই সবাই মিলে একসঙ্গে হয়ে কাজ করব।’

প্রিয় পাঠক, আপনিও হতে পারেন আওয়ার বাংলা অনলাইনের একজন সক্রিয় অনলাইন প্রতিনিধি। আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনা, অপরাধ, সংবাদ নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুনঃ [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :