গর্ভপাত প্রতিরোধে করণীয়

  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:৪৬ পিএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

গর্ভপাতের সমস্যা অনেক নারীর হতে পারে।তাই মা হতে হলে প্রথম তিন মাস খুব সাবধানে থাকতে হবে। এছাড়া চিকিৎসকের রুটিন মেনে চললে এই সমস্যা অনেকটাই সমাধানে আসবে।

গর্ভপাতের ফলে নষ্ট হয় অনেক পরিবারের স্বপ্ন। নতুন অতিথির মুখ দেখার জন্য বাবা-মার পাশাপাশি পরিবারের সদস্যরা অপেক্ষায় থাকেন। তবে আপনার সামান্য অসাবধানতার কারণে হতে পারে দুর্ঘটনা। তাই সাবধানে থাকুন।

তাই গর্ভপাত প্রতিরোধে মেনে চলতে হবে কিছু বিষয়। আসুন জেনে নেই গর্ভপাত প্রতিরোধে যেসব বিষয় মেনে চলবেন।

প্রথম ৩ মাস

গর্ভাবস্থার প্রথম ৩ মাস ঝুঁকিপূর্ণ। ভারি কাজ করা ও সহবাস থেকে বিরত থাকতে হবে।এছাড়া ভ্রমণে যাওয়া যাবে না।

একাধিকবার গর্ভপাত

একাধিকবার গর্ভপাত হয়ে থাকলে পুনরায় গর্ভধারণের আগে ফিজিক্যাল চেকআপ করে নিন। পরবর্তীতে যাতে একই কারণের পুনরাবৃত্তি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

প্রচুর পানি পান

গর্ভপাত প্রতিরোধে পানি পানের বিকল্প নেই। তাই প্রচুর পানি পান করতে হবে। এছাড়া ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ফলিক অ্যাসিড, আয়রন ও ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করুন। এটি বাচ্চার জন্মগত ত্রুটি হওয়ার প্রবণতাকে কমিয়ে দেয় এবং গর্ভপাতের ঝুঁকি কমায়।

ধূমপান, অ্যালকোহল, ক্যাফেইন

ধূমপান, অ্যালকোহল, ক্যাফেইন জাতীয় পানীয় যেমন চা, কফি বা চকোলেট এবং মানসিক চাপের সঙ্গে গর্ভপাতের সম্পর্ক রয়েছে। তাই এগুলো এড়িয়ে চলা উচিত।

ওষুধ সেবনের

গর্ভাবস্থায় বেশি সতর্ক থাকতে হয় ওষুধ সেবনের ক্ষেত্রে। কারণ অনেক ওষুধ এমন আছে যার ফলে গর্ভের সন্তানের সরাসরি ক্ষতি সাধিত হয়। শিশু বিকলাঙ্গ, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হতে পারে। অনেক সময় ওষুধ সেবনের ফলে মৃত সন্তানের জন্মও হতে পারে।

পূর্ণ বিশ্রাম

মাকে সবসময় সাহস দেয়া এবং মায়ের শারীরিক ও মানসিক সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা। মায়ের জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার এবং পূর্ণ বিশ্রামের ব্যবস্থা করা।

আপনার মতামত লিখুন :